ফ্রিল্যান্সিং করার আগে যা জানতে হবে আপনাকে

ফ্রিল্যান্সিং করার আগে যা জানতে হবে আপনাকে What you need to know before freelancing. ফ্রিল্যান্সিং মানেই হলো মুক্ত পেশা। আপনি যদি ঘরে বসেই ইনকাম করতে চান তবে ফ্রিল্যান্সিং হতে পারে আপনার জন্য চমৎকার একটি অনলাইন চাকরি। ফ্রিল্যান্সিং যে কোন শ্রেণী-পেশার মানুষ করতে পারে।

এখানে ধৈর্যের সাথে নিজের দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজগুলো যতই সহজ হোক না কেন, প্রথমত নিজেকে সবার থেকে আলাদা করতে একটু বেশি পরিশ্রম দিতে হবে। আপনাকে এমন কাজ শিখতে হবে যে কাজ কম্পিউটারে করা যায়।

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কি কি প্রয়োজন হয়, কোন কাজের চাহিদা ফ্রিল্যান্সিংয়ে সবচেয়ে বেশি, ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস নির্বাচন সহ আরো বিভিন্ন বিষয় জানা নতুনদের জন্য অত্যন্ত জরুরি।

(১) ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য সবচেয়ে রিকমেন্ডেড বিষয় হলো স্কিল। কম্পিউটারে করা যায় এমন যে কোন কাজের উপর আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে হাজার হাজার ক্যাটাগরির কাজ পাওয়া যায়।

তবে ক্যাটাগরি বলতে গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, কম্পিউটার প্রোগ্রামিং, ডিজিটাল মার্কেটিং ইত্যাদি। এই ক্যাটাগরিগুলোর মধ্যে অনেক সাব ক্যাটাগরি রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সাব ক্যাটাগরি যেমন: ফটো এডিটিং, ইনফো গ্রাফিক, মোশন গ্রাফিক ইত্যাদি।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে LikhonBD.com এর ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

(২) কাজ শেখার পর সঠিক ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস নির্বাচন করা অত্যন্ত জরুরি। নতুনরা অনেক সময় ভুল মার্কেটপ্লেস নির্বাচন করে। ফলে এমনও হয় যে, কাজ পায় না, আবার কাজ পেলেও কাজ শেষে পেমেন্ট পায় না। এই ধরনের আরও বিভিন্ন সমস্যা তৈরি হয়। এজন্য ফ্রিল্যান্সিং করার আগে আপনাকে মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে পূর্ব ধারণা নেওয়া আবশ্যক।

(৩) খুব বেশি ক্যাটাগরির কাজ একসঙ্গে করাটাও উচিত না। আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন এবং প্রোগ্রামিং একসঙ্গে করতে যান তবে দেখবেন যে সার্ভিস দিতে গিয়ে এলোমেলো মনোভাব চলে আসবে।
একাধিক বিষয়ের স্কিল থাকে, তবে দুটি মার্কেটপ্লেস একসঙ্গে টার্গেট করতে পারেন। মনে করুন, Fiverr মার্কেটপ্লেসে গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর একাউন্ট খুললেন আর Upwork মার্কেটপ্লেসে প্রোগ্রামিং সার্ভিসের উপর একাউন্ট খুললেন।

ইচ্ছে করলে এভাবে কাজ করতে পারেন।

তবে আপনি যদি নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং করতে চান, তবে আপনার ওয়েবসাইটে একসঙ্গে বিভিন্ন সার্ভিসের অফার করতে পারবেন। এতে কোন প্রকার সমস্যা হবে না।

ফিল্যান্সিং করার জন্য যা যা প্রয়োজন হবে।

(১) ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য প্রথম রিকমেন্ডেড বিষয় হলো আপনার দক্ষতা বা স্কিল থাকতে হবে।
(২) ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনার একটি কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপ এর প্রয়োজন হবে।
(৩) ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য ইন্টারনেট সংযোগ এর প্রয়োজন হবে। ফ্রিল্যান্সিং যেহেতু ইন্টারনেটে ভিত্তিক কাজ। তাই ইন্টারনেট সংযোগ অবশ্যই লাগবে।
নতুন অবস্থায় ফ্রিল্যান্সিং বিষয়টা অনেক কঠিন মনে হয়। তবে সফল কয়েকজন ফ্রিল্যান্সারকে ফলো করেন, তবে সহজেই ফ্রিল্যান্সিংয়ে এগিয়ে যেতে পারবেন।

লেখাঃ নাজিরুল ইসলাম নকীব